সব প্রতিযোগীদের প্রশংসা করতে বলা হয়েছিল, বিস্ফোরক অমিত কুমার

RBN Web Desk: রিয়্যালিটি শোয়ের মান নিয়ে এবার মুখ খুললেন সঙ্গীতশিল্পী অমিত কুমার। সম্প্রতি এক হিন্দি টেলিভিশন চ্যানেলের রিয়্যালিটি শোয়ে বিশেষ অতিথিরূপে উপস্থিত হয়েছিলেন তিনি। গত বেশ কিছু বছরে জনপ্রিয় বিভিন্ন সঙ্গীত রিয়্যালিটি শোয়ের গুনগত মান নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুললেও একাধিক চ্যানেলে রমরম করে চলছে এই ধরণের অনুষ্ঠান। 

গত সপ্তাহে একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় প্রথম সারির হিন্দি সঙ্গীত রিয়্যালিটি শোয়ে শিল্পী কিশোর কুমারকে নিয়ে দুই পর্বে বিশেষ শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানো হয়। কিশোরের গাওয়া ১০০টি গানের মাধ্যমে প্রতিযোগী ও বিচারকরা তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এই অনুষ্ঠানেই বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কিশোরপুত্র অমিত। বিচারকরূপে সেদিন ছিলেন নেহা কক্কর, অনু মালিক ও হিমেশ রেশমিয়া। তাঁর বাবাকে নিয়ে বিশেষ এই পর্বে প্রতিযোগী ও বিচারকদের গান শুনে বেজায় চটে যান অমিত। যদিও অনুষ্ঠানে সকলের প্রশংসাই করতে দেখা যায় তাঁকে। তবে সেই প্রশংসা তাঁকে বাধ্য হয়ে করতে হয়েছিল বলে দাবি করেছেন অমিত। 

আরও পড়ুন: ওয়েব সিরিজ়ে সৌমিত্র, রইল ছবি

বিশেষ দুটি পর্ব সম্প্রচার হয়ে যাওয়ার পর গতকাল সংবাদমাধ্যমের সামনে মুখ খোলেন অমিত। দাবি করেন, পর্বটা মাঝপথেই থামিয়ে দিতে ইচ্ছে করছিল তাঁর। তবে তাঁকে যা করতে বলা হয়েছিল, তিনি তাই করেছেন। বলা হয়েছিল সব প্রতিযোগীদের প্রশংসা করতে। যে যেমনই গান পরিবেশন করুক না কেন, তাঁকে উৎসাহ দিতে বলা হয়েছিল। তিনি ভেবেছিলেন শ্রদ্ধাঞ্জলির পর্ব নিশ্চয়ই ভালো হবে।




কিন্তু প্রতিযোগী ও বিচারকদের গান শুনে হতাশ হন অমিত। তবে খারাপ লাগা সত্বেও তিনি কেন অতিথির আসন ছেড়ে উঠে গেলেন না, সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের উত্তরে অমিত জানান যে অর্থের প্রয়োজন সকলেরই আছে। তাঁর বাবাও এ ব্যাপারে বরাবরই সচেতন ছিলেন। অমিত যা পারিশ্রমিক চেয়েছিলেন, তাঁকে তাই দেওয়া হয়েছিল। তারপরেও তিনি কীভাবে শো ছেড়ে উঠে আসতেন? অমিত মেনে নেন, যেহেতু তাঁর বাবাকে শ্রদ্ধা জানানোর জন্যই ওই পর্বটি ছিল, তাই খারাপ লাগলেও সেখান থেকে তিনি উঠে আসতে পারেননি।

সেদিনের অনুষ্ঠানের মান নিয়ে দর্শক মহলেও সমালোচনা শুরু হয়েছে। পর্বটি সম্প্রচারিত হওয়ার দিন থেকেই দর্শকরা টুইট করে জানিয়েছেন প্রতিযোগীদের গান তো বটেই, এমনকি বিচারকরাও তাঁদের গানের মাধ্যমে কিশোরকে সন্মান জানানো দূরে থাক, অপমানই করেছেন। 



Like
Like Love Haha Wow Sad Angry

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *